অনলাইনে কেনাকাটায় সাবধানতা অবলম্বন করুন

0
160

দেওয়ানবাগ ডেস্ক: লকডাউনে নিজের প্রয়োজনীয় পণ্যটির কেনার জন্য অনেকেই এখন অনলাইনের আশ্রয় নিচ্ছেন। অবশ্য এই পরিস্থিতিতে কেনাকাটায় অনলাইনই এখন সচেতনদের ভরসা হয়ে উঠেছে। এই অচলাবস্থায় বিশ্বে এখন সর্বত্রই ই-কমার্স সাইটগুলো বেশ জমজমাট। কিন্তু এই মাধ্যম আপনার জন্য কতটা নিরাপদ? কিংবা আপনি কতটা সাবধানতা অবলম্বন করছেন?

অনলাইনে কেনাকাটায় ক্রেতার ব্যক্তিগত তথ্য ও লেনদেনের মাধ্যমটি কতটা নিরাপদ সেটাই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কেনাকাটা করতে গিয়ে আপনার তথ্য ও ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও এর পাস ওয়ার্ড হ্যাকারের কাছে চলে যাচ্ছেনাতো?

এই বিষয়ে এক্সপার্টদের কিছু পরামর্শ রয়েছে যেগুলো মেনে অনলাইনে কেনাকাটা করলে আপনার তথ্য ও লেনদেন নিরাপদ রাখা যাবে:
১। আপনি ট্রাস্টেড ব্রাউজার ব্যবহার করুন এবং তা নিয়মিত আপডেট রাখুন।
২। এমন কোনো ওয়েবসাইটে লেনদেন করবেন যে ওয়েবসাইট ডাটা এনক্রিপশন করে না বা সহজে বলতে গেলে যেসব ওয়েবসাইটে HTTPS নেই। HTTP-এর শেষে S লেখাটি দেখে নিবেন।
৩। প্রয়োজনীয় পণ্যের লোভনীয় কোনো অফারের ই-মেইলে যাচাই-বাছাই ছাড়া ক্লিক করবেন না ও লেনদেন করবেন না।
৪। লোভনীয় কোনো পপ-আপে ক্লিক ও লেনদেন করবেন না।
৫। সুপ্রতিষ্ঠিত ও ট্রাস্টেড অনলাইন প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য প্রতিষ্ঠানের সাথে লেনদেন এড়িয়ে চলুন।
৬। পাসওয়ার্ডে নম্বর, সিম্বল, ছোট-বড় হাতের অক্ষর মিলিয়ে যতটা সম্ভব জটিল করে তৈরি করুন।
৭। যেখানে সেখানে ফ্রি ওয়াইফাই পেলেই তা ব্যবহার করে অনলাইনে কেনাকাটা করবেন না। ইমারজেন্সিতে ভিপিএন ব্যবহার করতে পারেন।
৮। ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে অনলাইনে কেনাকাটা করা ভালো। কারণ, ডেবিট কার্ড আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টের সঙ্গে যুক্ত থাকে, আর ক্রেডিট কার্ডে নির্দিষ্ট একটা অ্যামাউন্ট ব্যবহারের পর বিল পে না করে ব্যবহার করা যায় না।
৯। ফিশিং সাইট থেকে দূরে থাকুন, লেনদেন করার আগে ওয়েব সাইটটি ভালো করে লক্ষ্য করে দেখুন। ঠিকানা মিলিয়ে নিন। প্রয়োজনে একাধিকবার চেক করে নিন।
১০। আপনি যে ওয়েব সাইটে লেনদেন করছেন তারা আপনার ডাটা কতটুকু নিরাপদে রাখবে সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।
১১। ক্রেডিট কার্ড বিল ও ব্যাংক স্টেটমেন্টে লক্ষ্য রাখুন, যে অনাকাক্সিক্ষত কোনো ট্রানজেকশন আছে কি না, থাকলে তা ব্যাংকে রিপোর্ট করুন।
১২। নিজের ডিভাইসটিকে ম্যালওয়্যার মুক্ত রাখার জন্য ভালো একটি অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করুন, যাতে হ্যাকাররা আপনার ডিভাইস হ্যাক করে আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্ট হ্যাক বা পেমেন্টের তথ্য নিতে না পারে।
১৩। যে কোনো কেনাকাটার পর আপনি একটি ফেরত মেইল পাবেন, সেটি চেক করুন।
যে কোনো ধরনের সাইবার ক্রাইম বা অনলাইনে আর্থিক প্রতারণার শিকার হলে, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত করুন। জরুরি পুলিশি সাহায্যের জন্য জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ নম্বরে (টোল ফ্রি) কল করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here