করোনায় ফাঁকা ঢাকা, সহনীয় বায়ুদূষণ

0
307

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাবে রাজধানীর সড়কগুলো জনশূন্য। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন না কেউ। চিরচেনা সড়কগুলো এখন যেন অচেনা।

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করায় রাজধানী ঢাকা ছেড়ে বেশিরভাগ মানুষই গ্রামে চলে গেছেন। এতে এখন অনেকটাই ফাঁকা ব্যস্ত নগরী ঢাকা। সব মিলিয়ে, শিক্ষার্থীরা স্কুল-কলেজে যাচ্ছে না, কেউ অফিসের দিকে ছুটছে না। যানবাহনসহ বন্ধ রয়েছে কলকারখানা। কর্মব্যস্ত দিনে মানুষের কর্মচাঞ্চল্য আর যানবাহনের ভিড়ের কারণে ঢাকায় সকাল-সন্ধ্যা সারাবেলা বায়ু দূষিত হতো। তবে করোনার কারণে সেই পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়েছে। ঢাকার বায়ুর মান কিছুটা উন্নত হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের কনস্যুলেটের রিয়েলটাইম বায়ু মান সূচক অনুযায়ী, শনিবার (২৮ মার্চ) সকাল ১০টায় ঢাকার বায়ুর মান ছিল ১৪৪ পিএম২.৫। বায়ুর এ মানের কারণে সুস্থ মানুষের অসুস্থ বা ক্ষতি হওয়ার সুযোগ নেই। তবে যারা এ সংক্রান্ত রোগে ভুগছেন, তাদের জন্য এটি ক্ষতিকারক। কয়েকদিন ধরে করোনার কারণে মানুষের কর্মচঞ্চলতা না থাকায়, যানবাহন চলাচল না করায় এবং ঢাকা ছেড়ে অনেকের গ্রামে যাওয়ার কারণে রাজধানীর বায়ুর মান উন্নত হয়েছে। এ বায়ু মান সূচকের তথ্যানুযায়ী, ঢাকায় শনিবার (২৮ মার্চ) বায়ুর গড় মান ১৬৮ পিএম২.৫। চলতি বছরেরই ২৮ ফেব্রম্নয়ারিতে বায়ুর গড় মান ছিল ১৯২ পিএম২.৫ এবং ২৮ জানুয়ারি ছিল ২৬৫ পিএম২.৫। এছাড়াও ২০১৯ সালের ২৮ মার্চ ঢাকায় বায়ুর মান ছিল ১৮৩ পিএম২.৫, ২০১৮ সালের ২৮ মার্চ ছিল ১৫১ পিএম২.৫, ২০১৭ সালে ১৬৩ পিএম২.৫ এবং ২০১৬ সালে ছিল ১৬০ পিএম২.৫। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক আইকিউ এয়ারের তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরের মধ্যে ঢাকার অবস্থান ২১তম। সবচেয়ে দূষিত দেশের মধ্যে শীর্ষে বাংলাদেশ। উলেস্নখ্য, করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্বব্যাপী স্থবিরতা বিরাজ করছে। কলকারখানা বন্ধসহ অনেক দেশে লকডাউন ও কারফিউ চলছে। বেশ কয়েকটি দেশে চলাচল সীমিত করা হয়েছে। তবে এ কারণে বিশ্বব্যাপী বায়ু মান উন্নত হয়েছে। গবেষকরা বলছেন, সারা বিশ্বেই কার্বন নিঃসরণ ব্যাপকহারে কমেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here