করোনা সংক্রমণের চূড়ান্ত স্তরে বাংলাদেশ

0
401

দেওয়ানবাগ ডেস্ক : বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের স্তর চারটি। যেসব দেশে এখনো করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি তারা প্রথম স্তরে রয়েছে। দ্বিতীয় স্তর হলো- যে দেশে বিদেশ ফেরত ব্যক্তির শরীরে করোনা ধরা পড়েছে এবং তার মাধ্যমে আরো দুই-একজন সংক্রমিত হয়েছেন। আর নির্দিষ্ট কিছু এলাকায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া হলো তৃতীয় স্তর। ভাইরাসটির সর্বশেষ ও চতুর্থ স্তর হলো- সামাজিকভাবে তা ছড়িয়ে পড়া।

বাংলাদেশ এখন ভাইরাসটির সর্বশেষ ও চতুর্থ স্তরে প্রবেশ করেছে। অর্থাৎ দেশে এই মুহূর্তে সামাজিকভাবে ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ভাইরাস। বিদেশ ফেরতদের থেকেও বেশি সংক্রমিত হচ্ছেন সাধারণ জনগণ। ইতোমধ্যে তা ১৭টি জেলা ও বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে গেছে। সংখ্যাটা ক্রমশ বাড়ছে।

চীন, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, স্পেন, ফ্রান্সসহ বিশ্বের যেসব দেশে ইতোমধ্যে বিপর্যয় সৃষ্টি হয়েছে সে দেশের সংক্রমণের ধারা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, প্রথম রোগী শনাক্ত হওয়ার এক মাসের মধ্যে ভাইরাসটি ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশেও এক মাস হয়ে গেছে। অর্থাৎ গভীর সংকটের মুখোমুখি দেশ।

গত মঙ্গলবার চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও একই ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি বলেন, করোনা রোগী বৃদ্ধি পাওয়ার একটা প্রবণতা আছে। বাংলাদেশেও এখন সেই সময়টা এসে গেছে। তাই চলতি এপ্রিল মাসে সবাইকে খুব সাবধানে থাকতে হবে।

একই কথা বলেছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক ড. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। তিনি বলেন, দেশ এখন সংক্রমণের তৃতীয় স্তর থেকে চতুর্থ স্তরের দিকে যাচ্ছে। সামনে সবাইকে কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে।

অর্থাৎ রোগ সংক্রমণের চতুর্থ স্তরে পৌঁছানো মানে হচ্ছে, অসংখ্য মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হবে।

এদের মধ্যে অনেকেই মারা যাবেন। হাসপাতালগুলোতে রোগীর সংখ্যা বাড়বে। পর্যাপ্ত রকমের প্রস্তুতি না থাকলে এই সংকট মোকাবেলা করা বাংলাদেশের জন্য অনেকটা কঠিন হয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, দেশে এখন পর্যন্ত মোট ১৭টি জেলায় করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত হয়েছে ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ জেলা। এ ছাড়া মাদারীপুর, গাইবান্ধা, জামালপুর, চট্টগ্রাম, চুয়াডাঙ্গা, কুমিল্লা, কক্সবাজার, গাজীপুর, মৌলভীবাজার, নরসিংদী, রংপুর, শরীয়তপুর, সিলেট, মানিকগঞ্জ ও টাঙ্গাইলে কোভিড-১৯ রোগী শনাক্ত হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here