ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীদের ব্যাংক ঋণের দায়িত্ব নেবে সরকার ও বিশ্ব ব্যাংক

0
155


দেওয়ানবাগ প্রতিবেদক: করোনাকালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতের উদ্যোক্তারা। এ খাতকে সুরক্ষা দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন। ব্যাংক-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে এ ঋণ বিতরণের কথা। কিন্তু ব্যাংকগুলো এসএমই ঋণ বিতরণে সেভাবে এগিয়ে আসছে না। বড় ব্যবসায়ীরা করোনা প্যাকেজের ঋণ নিতে পারলেও প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণে কঠিন শর্তের বেড়াজালে পড়েছেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। এতে এই কঠোর পরিস্থিতি থেকে বের হতে পারছেন না ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীরা। অনেক ব্যবসাই গুটিয়ে দিতে হয়েছে। অনেক ব্যবসায়ীই এখন পথে বসার অবস্থায় আছে। এ অবস্থায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই) খাতের প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণ দ্রুত বিতরণে ব্যাংকগুলোকে উৎসাহিত করতে ক্রেডিট গ্যারান্টি দিতে যাচ্ছে সরকার। এজন্য বরাদ্দ রাখা হচ্ছে দুই হাজার কোটি টাকা। পাশাপাশি এসএমই ঋণে গ্যারান্টি দিতে বিশ্ব ব্যাংকও নিয়ে আসছে প্রায় দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প। এই দুই স্কিমের আওতায় ঋণ ফেরত পাওয়ার নিশ্চয়তা পাবে ব্যাংকগুলো।
সূত্র জানায়, নোভেল করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) প্রভাবে দেশের অর্থনৈতিক ক্ষতি মোকাবিলায় এখন পর্যন্ত সরকার ১৯টি প্যাকেজে এক লাখ ১১ হাজার ১৩৭ কোটি টাকার আর্থিক প্রণোদনা ঘোষণা করেছে। যা জিডিপি’র (দেশজ উৎপাদন) প্রায় ৪ শতাংশ। অন্যান্য প্যাকেজের ঋণ বিতরণ স্বাভাবিক হলেও ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের জন্য ঘোষিত ২০ হাজার কোটি টাকা থেকে ঋণ বিতরণের চিত্র হতাশাজনক।
করোনাকালে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ক্ষুদ্র (কুটির শিল্প) ও মাঝারি শিল্পগুলো। তাই এ খাতকে সুরক্ষা দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেন। ব্যাংক-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে এ ঋণ বিতরণের কথা। এ ঋণ পেতে ট্রেড লাইসেন্স, মালিকানার ধরনের সনদসহ বিভিন্ন ধরনের কাগজ লাগে।
ফলে অনেক প্রতিষ্ঠানই ঋণের জন্য আবেদন করতে পারছে না। আবার ব্যাংকও জামানত ছাড়া ঋণ দিচ্ছে না। ফলে আগস্ট পর্যন্ত ব্যাংকগুলো ২০ হাজার কোটি টাকার মধ্যে মাত্র তিন হাজার ৭০০ কোটি টাকা বিতরণ করতে পেরেছে। এর মধ্যে ক্ষুদ্র শিল্পগুলো পেয়েছে মাত্র ৮০ কোটি টাকা।
সারাদেশে এসএমই খাতের ৭৮ লাখ শিল্প প্রতিষ্ঠান রয়েছে। বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অর্থনীতিতে বড় অবদান রাখতে সক্ষম হয়েছে এ খাত। এ খাতে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগও রয়েছে। পণ্য উৎপাদনের পাশাপাশি সেবা খাত হিসেবেও এটি দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে এখন সবচেয়ে বেশি ঝুঁকির মুখে পড়েছে এ খাতের সংশ্লিষ্টরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here