চোখে অন্ধকার ৫৬ লাখ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর

0
186

দেওয়ানবাগ প্রতিবেদক : করোনা পরিস্থিতির কারণে চোখে অন্ধকার দেখছেন দেশের ৫৬ লাখ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী যারা বড়ো ও মাঝারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে উৎসবের পণ্য সরবরাহ করতো। কারণ, তাদের ব্যবসার সবচেয়ে বড়ো দুটি উপলক্ষ্য পহেলা বৈশাখ ও রোজার ঈদ। সাধারণ ছুটির কারণে বৈশাখের ব্যবসা ধরতে পারেননি তারা। এতে বিনিয়োগকৃত পুঁজি হারিয়ে পথে বসার উপক্রম হয়েছে। আর বর্তমান যে পরিস্থিতি, তাতে ঈদের বাজার ধরতে পারা নিয়ে অনিশ্চয়তা শতভাগ। তাই এক সময়ের কর্মসংস্থান সৃষ্টিকারী এই ৫৬ লাখ উদ্যোক্তা এখন ঋণগ্রস্ত বেকার হওয়ার পথে। তাদের সাথে বেকার হবে এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মরত কয়েক কোটি শ্রমিক। সংকট মোকাবেলায় এক হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা তহবিল ও অনলাইনে বেচাকেনার সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়ার দাবি সংশ্লিষ্টদের।

পণ্য সরবরাহের ব্যবস্থা না থাকায় বিভিন্ন খাতের ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠান, কুটিরশিল্প, হস্তশিল্পগুলো তাদের পণ্য সরবরাহ করতে পারছে না। অনেকের বন্ধ হয়ে গেছে উৎপাদন। একই কারণে এ ধরনের ছোটো ছোটো সেবা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ হয়ে গেছে। আসন্ন ঈদে কোনোভাবে বেতন দিলেও বোনাস দিতে পারবে না অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান বেতনও ঠিকমতো পরিশোধ করতে পারবে না।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের অনেকগুলো খাত বাড়তি গতি পায়। রোজা শুরুর আগে থেকেই এই গতিশীলতা শুরু হয়। চলে ঈদের পরেও। এ সময়ে পোশাক-পরিচ্ছদ, ভোগ্যপণ্যের চাহিদা বাড়ে কয়েকগুণ। এ ছাড়া গৃহস্থালি পণ্য, আসবাবপত্র ও ইলেকট্রনিক্স পণ্যের চাহিদাও বেড়ে যায়। এসব পণ্যে কোম্পানিগুলো ঈদ উপলক্ষ্যে নানা ধরনের ছাড় দেয়। ক্রেতারা ঈদের সময় বাড়তি আয়ে এসব পণ্য কেনেন। ফলে এসব পণ্যের উৎপাদন, সরবরাহ ও বিক্রির সঙ্গে সম্পৃক্ত ক্ষুদ্র ও মাঝারি খাতের ব্যবসায়ীদের মধ্যে থাকে চাঞ্চল্য। এবার করোনাভাইরাসের কারণে সেই চাঞ্চল্য নেই। যদিও সুনির্দিষ্ট কোনো গবেষণা নেই, তবু বলা হয়ে থাকে ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের বাজারে ৩০ হাজার কোটি টাকার অতিরিক্ত লেনদেন হয়। এ বছর এর কতটা হবে তা বোঝা যাচ্ছে না। সংশ্নিষ্টরা বলছেন, ৩০ হাজার কোটি টাকার ব্যবসাই আটকে গেছে।
পুরো রমজানজুড়ে চলে ইফতার পার্টি। এসব পার্টিতে খাবার সরবরাহের পাশাপাশি মঞ্চ বা অনুষ্ঠানস্থল সাজানোর কাজ করা প্রতিষ্ঠান, ডেকোরেটর, সাউন্ড সিস্টেম প্রতিষ্ঠানের কাজ বেড়ে যায়। এবার তার কিছুই হচ্ছে না। ডেকোরেটর ব্যবসায়ী আমিনুল ইসলাম জিন্দার এ বিষয়ে বলেন, অন্যান্য বছর রমজানে দম ফেলার সময় থাকে না। এ বছর ঘরে আটকা আছি।

ঈদের আগে সাজগোজের অন্যান্য পণ্য বিশেষ করে ইমিটেশনের গহনা, কসমেটিকসের চাহিদা বাড়ে। বিউটি পার্লারেও ভিড় বেড়ে যায়। স্বর্ণের বাজারেও চাহিদা বাড়ে। সব মানুষের ছুটির সুবাদে ঈদের সময় দেশে বিয়ের আয়োজন বাড়ে। ফলে বিয়েতে প্রয়োজন এমনসব পণ্যের বাজারও চাঙ্গা হয়। এমনকি ঈদকে কেন্দ্র করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মানুষ পোস্টার ছাপিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এতে ব্যস্ত থাকে প্রিন্টিং প্রেস।

রোজার মধ্যেই দেশের ধনী বা সামর্থ্যবান মানুষ যাকাত দেন। অনেকেই যাকাত হিসেবে শাড়ি, লুঙ্গি দিয়ে থাকেন। ফলে এ ধরনের পণ্যের বাজার চাঙ্গা হয়। ঈদের ছুটিতে অনেকে বেড়াতে যান, ফলে পর্যটন খাতেও থাকে ব্যস্ততা। কিন্তু এ বছর এসবই বন্ধ রয়েছে। এসএমই প্রতিষ্ঠানগুলোর নেওয়া ঋণের বোঝা বড় হচ্ছে। অনেক প্রতিষ্ঠানের পাওনা আটকা পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে প্রতিষ্ঠানগুলোর এখন টিকে থাকাই দায়।

বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি সভাপতি মো. হেলালউদ্দিন বলেন, একজন থেকে সর্বোচ্চ ১৫ জন শ্রমিক নিয়ে দেশে ৫৬ লাখ উদ্যোক্তা ব্যবসা ও উৎপাদন কার্যক্রম পরিচালনা করছে। যাদের বড় অংশের ব্যবসার সঙ্গে ঈদের বেচাকেনার সম্পর্ক রয়েছে। ঈদের বেচাকেনা না হলে অনেক প্রতিষ্ঠান চলতে পারবে না। কারণ ঈদের বেচাকেনার মাধ্যমে বিভিন্ন ঋণ শোধ করা হয়। করোনাভাইরাসের কারণে সৃষ্ট পরিস্থিতিতে এই ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের পথে বসার উপক্রম হয়েছে। তিনি এই ধরনের ব্যবসায়ীদের জন্য সরকারের কাছে আলাদা করে এক হাজার কোটি টাকার তহবিল দেওয়ার দাবি জানান।

এ বিষয়ে বিআইডিএসের সিনিয়র রিসার্চ ফেলো নাজনীন আহমেদ বলেন, ঈদকেন্দ্রিক ব্যবসার পুরোটাই এবার লোকসানে পড়েছে। উৎপাদন ও বিক্রির সুযোগ নেই। যতটুকু আছে সেখানেও ক্রেতার কেনার আগ্রহ কম। অধিকাংশই এখন অতিরিক্ত ব্যয় করার চেয়ে সঞ্চয় ধরে রাখার কথা ভাবছে। আবার অনেকের কেনার ক্ষমতা কমেছে। ফলে ছোট, মাঝারি ব্যবসায়ীরা এমনকি কোনো কোনো ক্ষেত্রে বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও সংকটে পড়েছে। এ অবস্থায় ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা করতে অনলাইনে কেনাকাটা ও পণ্য পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টি করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here