টিকে থাকতে হলে বাড়াতে হবে নারীর দক্ষতা

0
153

নারী ডেস্ক: জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয় নারী ও শিশুরা। নিরাপদ আবাসন থেকে শুরু করে শিক্ষা, সুরক্ষা ও অর্থনৈতিক কর্মক্ষমতা সবকিছুই হারায় তারা।

অ্যাকশনএইড বাংলাদেশের অফিসার আনহারা রব্বানী ও মারিয়া আক্তারের গবেষণায় জানা যায়, নারী ও পুরুষের মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় বৈচিত্র্যপূর্ণ দক্ষতার অভাব রয়েছে। পাশাপাশি স্থানীয় সরকার পর্যায়ে অভিবাসনে বাধ্য পরিবারগুলোকে সহায়তার জন্য কোনো পদ্ধতি বা তথ্য পদ্ধতি গড়ে ওঠেনি।

অভিবাসী মানুষদের মধ্যে সবসময় উচ্ছেদ হওয়ার ভয় তাড়া করে। অচিরেই জলবায়ু পরিবর্তনসহ বিভিন্ন কারণে ১ কোটি ৮০ লাখ লোক অভ্যন্তরীণ অভিবাসন গ্রহণ করবে। ২০৪১ সালে সেটি ২ কোটি ১৩ লাখে গিয়ে দাঁড়াবে।

এ সমস্যা উত্তরণে ন্যাশনাল স্ট্র্যাটেজি প্ল্যান বাস্তবায়ন, ৮ম পঞ্চবার্ষিকীর সঙ্গে ডেল্টা প্ল্যানের সমন্বয়, জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ অঞ্চলগুলোয় নারী ও যুবকদের দক্ষতা বিকাশে ব্যবস্থা গ্রহণ, ডিজিটাল রিস্ক ও রেজিলিয়েন্স ইনডেক্স প্রতিষ্ঠা, অভিবাসীকর্মীদের জন্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন সময়ে জীবিকার সুযোগের ওপর একটি তথ্যকেন্দ্র স্থাপন করা দরকার।

এ প্রসঙ্গে অ্যাকশনএইড বাংলাদেশ-এর কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবির বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনজনিত অভিবাস মোকাবেলায় পলিসি নির্ধারণে ৮ম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা ও ডেল্টা প্ল্যানের সমন্বয় করতে হবে। বিভিন্ন দুর্যোগ অনেক মানুষকে অভিবাসন গ্রহণ করতে বাধ্য করে। জলবায়ু উদ্বাস্তুদের মধ্যে যখন খাস জমি বিতরণ করা হয় তখন নারীদের বিষয়টি অগ্রাধিকার দিতে হবে। পলিসি নির্ধারণের ক্ষেত্রে নারী ও তরুণসহ বিভিন্ন মহলের অংশগ্রহণের সুযোগ থাকতে হবে। সাধারণ জনগণের অভিমত শুনতে হবে। পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনজনিত শিক্ষা কার্যক্রম ও জীবন দক্ষতা প্রোগ্রামে সাধারণ মানুষকে যুক্ত করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here