তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী : বিশ্ব মানবতার মুক্তির পথ নির্দেশনা

2
905

ড. সৈয়দ মেহেদী হাসান
সার সংক্ষেপ : মহাগ্রন্থ আল কুরআনের সঠিক ব্যাখ্যা প্রদানকারী তাফসীর প্রণেতা, মহান সংস্কারক, বিশ^ মানবতার মুক্তির কাণ্ডারী, শ্রেষ্ঠ দার্শনিক সূফী সম্রাট হযরত সৈয়দ মাহ্বুব-এ-খোদা দেওয়ানবাগী (মা. আ.) হুজুর কেব্লাজান প্রণিত পবিত্র কুরআনের আলোকে জীবন বিধান- বিষয় ভিত্তিক তাফসীর- ‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’, যা কালজয়ী ও অমর কীর্তি হিসেবে মানুষের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে। এ তাফসীর গ্রন্থটি বাংলা ভাষায় রচিত। যা মোট ৮ খণ্ডে প্রকাশিত হয়েছে। প্রথম খণ্ডটিতে আল্লাহর জাত-পাকের (Holy Spirit) পরিচয় প্রকাশ পেয়েছে। পরবর্তী ৭ খণ্ড ধারাবাহিকভাবে আল্লাহ্র গুণাবলি তথা সিফাতসমূহ (Attributes) নিয়ে রচিত হয়েছে। তাঁর লেখা তাফসীর শরীফটি আধ্যাত্মবাদ ও মানবজাতির পূর্ণঙ্গ জীবন দর্শনের কোষ (Encyclopedia of Spiritualism and Complete Code and Philosophy of life)হিসেবে কেয়ামত অবধি বিশ্ব মানবতার শান্তি ও মুক্তির দিক নির্দেশনা হিসেবে পরিগণিত হবে।

Encyclopedia জ্ঞান জগতের এক গুরুত্বপূর্ণ ভাণ্ডার। ইংরেজী Encyclopedia-কে বাংলায় বিশ্বকোষ বলা হয়। ইহা গ্রীক শব্দ enkyklios (বৃত্তাকারে বা চক্রাকারে) paideia (শিক্ষা) হইতে নির্গত। অর্থাৎ- বিদ্যা শিক্ষা চক্র বা পরিপূর্ণ জ্ঞান সংগ্রহ। আরবিতে ইহাকে ‘দাইরাতুল মা’আরিফ’ অথবা ‘আল মাওসু’আ’ বলা হয়।
তাফসীর প্রণেতা মহান সংস্কারক সূফী সম্রাট হযরত দেওয়ানবাগী (মা. আ.) হুজুর কেব্লাজান তাঁর এ কালজয়ী তাফসীর গ্রন্থ ‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’ ছাড়াও বাংলা ভাষায় সূফীবাদের উপর বহু মূল্যবান গ্রন্থ রচনা করেন। ‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’ লিখতে গিয়ে তিনি ইসলামের স্বর্ণযুগ হতে শুরু করে আধূুনিক যুগের যে সকল তাফসীর, হাদীস ও অন্যান্য গ্রন্থাবলী থেকে সাহায্য নিয়েছেন তার বিবরণ নিম্নে দেওয়া হলো-
সহায়ক তাফসীরের কিতাবসমূহের নাম-

তাফসীরে কালিমাতুল্লাহ্, তাফসীরে আলী ফিল কুরআনি ওয়াস সুন্নাহ, তাফসীরে ইমাম হুসাইন, তাফসীরে জিলানী, তাফসীরে আহলুল বাইতি ফিল কুরআনিল কারীম, তাফসীরে ইবনে আব্বাস (আরবি), তাফসীরে ইবনে আব্বাস (বাংলা, ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক অনূদিত), তাফসীরে ইবনে আরাবী, তাফসীরে হাসান বসরী, তাফসীরে মিজান, তাফসীরে তুসতুরী, তাফসীরে কুম্মী, তাফসীরে দাহহাক, তাফসীরে আবদুর রাজ্জাক, তাফসীরে বগভী, তাফসীরে কুরতুবী, তাফসীরে ইমাম শাফেয়ী, তাফসীরে ইবনুল মুনযির, তাফসীরে রূহুল বয়ান, তাফসীরে কাবীর, (আরবি), তাফসীরে কাবীর (বাংলা, ইসলামিক ফাউন্ডেশন কর্তৃক অনূদিত), তাফসীরে তাবারী (আরবি), তাফসীরে তাবারী (বাংলা, ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), তাফসীরে জালালাইন, তাফসীরে বায়জাবী, তাফসীরে দুররে মানছুর, তাফসীরে ওসমানী, তাফসীরে কানজুল ইমান, তাফসীরে সাফাওয়াতুত তাফাসীর, তাফসীরে আশরাফি এবং তাফসীরুল আহলামি বিরিওয়াইয়াতি ইমাম আলী ওয়া আহলিল বাইতি।
সহায়ক হাদীসের কিতাবসমূহের নাম, কালিমাতুল রাসুলিল আ’জাম (সা.), গাদীরে খুম-এ-রাসুলল্লাহ্ (সা.)-এর ভাষণ, মুসনাদে ইমাম আলী, মুসনাদে ইমাম আমীরুল মু’মিনীন আলী ইবনে আবু তালেব, সুনানে ইমাম আলী, মুসনাদে ফাতিমাতুয যোহরা, মুসনাদে ইমাম হাসান, মুসনাদে ইমাম মুজতবা আল হাসান বিন আলী, মুসনাদে ইমাম শহীদ [ইমাম হুসাইন (রা.)], মুসনাদে আহলুল বাইত, মুসনাদে ইমাম সাজ্জাদ (ইমাম যাইনুল আবেদীন), মুসনাদে ইমাম আযম আবু হানিফা, আল আদাবুল মুফরাদ (বাংলা. ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), আল ইমামুল আজম আবু হানিফা ওয়াস সুনাইয়্যাতু ফী মাসানীদিহ, মুয়াত্তা ইমাম মালিক, মুসনাদে আহমদ ইবনে হাম্বাল (আরবি), মুসনাদে আহমদ ইবনে হাম্বল (বাংলা. ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), মুসনাদে ইমাম শাফেরী, মুসনাদে ইমাম জা’দ, মুসনাদে ইমাম বাজ্জার, মুসনাদে ইমাম জাফর সাদেক, মুসনাদে ইমাম রেজা, মুসনাদে ইমাম যায়েদ, মুসনাদে ইমাম কাজেম, মুসনাদে ইমাম আল জাওয়াদ, মুসনাদে ইমাম বাকের, মুসান্নাফে আবদুর রাজ্জাক, মুয়াত্তায়ে ইমাম মোহাম্মদ, সহীহ ইবনে হিব্বান, সহীহ ইবনে খুযাইমাহ, বোখারী শরীফ (আরবি), বোখারী শরীফ (বাংলা. ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), মুসলিম শরীফ (আরবি), মুসলিম শরীফ (বাংলা. ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), আবু দাউদ শরীফ (আরবি), আবু দাউদ শরীফ (বাংলা. ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), তিরমিজী শরীফ (আরবি), তিরমিজী শরীফ (বাংলা. ই.ফা.বা. কর্তৃক অনূদিত), সুনানে ইবনে মাজাহ (আরবি), সুনানে ইবনে আদ দারেমী (বাংলা) দালায়েলুন নবুওয়্যহ, সুনানে দারে কুতনী, আস সুনানুল কুবরা (বায়হাকী শরীফ), মেশকাত শরীফ, কালিমাতু ইমাম আলী (আল হাদী), কালিমাতু আমীরুল মুমিনীন, আশারাতু আলাফি হিকমাতিন মিন হিকামি ইমাম আলী, খামসাতু আলাফি হিকমাতিন মিন হিকামি আলী, কালিমাতু ফাতিমাতুয যোহরা, কালিমাতু ইমাম মুজতবা [ইমাম হাসান (রা.), কালিমাতু ইমাম যাইনুল আবেদীন, মিন আরওয়াই মা ক্বালাহু ইমাম আলী, আয যোহরা (রা.) ওয়া খুৎবাহু ফাদাক, কালিমাতু সাইয়্যেদাহ জয়নাব, কালিমাতুল আসহাব, কালিমাতুল আম্বিয়া ওয়াল হুকামা, রিয়াদুস সালেহীন এবং হাদীসে কুদসী]

সূফী সম্রাট হুজুর কেবলাজানের রচিত গ্রন্থসমূহ
স্রষ্টার স্বরূপ উদঘাটনে সূফী সম্রাটঃ আল্লাহ্কে সত্যিই কি দেখা যায় না (বাংলা), Sufi Samrat Uncovers Actual Identity of Allah : Is Allah Not Really Seen? (ইংরেজি), বিশ্ব নবীর স্বরূপ উদঘাটনে সূফী সম্রাটঃ রাসূল (সা.) সত্যিই কি গরীব ছিলেন? (বাংলা) Sufi Samrat Uncovers Hidden Truth on Great Prophet: Was Muhammad (Sm) Really Poor? (ইংরেজি), ঈদ সমস্যার সমাধান (বাংলা), Eid Moon Sighting Problem and Solution (ইংরেজি), সূফী সম্রাটের যুগান্তকারী ধর্মীয় সংস্কার, সূফী সম্রাটের যুগান্তকারী অবদান: আল্লাহ্ কোন পথে?, এজিদের চক্রান্তে মোহাম্মদী ইসলাম, আল্লাহ্র নৈকট্য লাভের সহজ পথ, ফেরকা সমস্যার সমাধান, সন্তানের প্রতি মায়ের অধিকার, কবর ও মাজার সম্পর্কে ইসলামের বিধান, শান্তি কোন পথে?, মুক্তি কোন পথে? ও ওয়াজিফা (দৈনিক আমল)

তাফসীর: তাফসীর আরবি শব্দ। একবচন, বহুবচনে তাফসীর ব্যবহৃত হয়। আভিধানিক অর্থ হলো- উন্মোচন করা, বর্ণনা করা, গোপনীয় ও অস্পষ্ট বস্তু স্পষ্ট করে দৃশ্যমান করে তোলা, সুস্পষ্ট ও বোধগম্য অর্থ প্রকাশ করা। পরিভাষার তাফসীর এমন এক ব্যাখ্যামূলক বিদ্যার নাম, যার দ্বারা আল কুরআনের অন্তর্নিহিত মর্মভাব উদঘাটন করা যায়। তাফসীর এমন বিদ্যা যাতে মানুষের সাধ্যানুসারে আল কুরআনের কোনো আয়াত বা কোনো শব্দ দ্বারা আল্লাহ্ তাআলা কি বুঝাতে চেয়েছেন সে সম্পর্কে আলোকপাত করা হয়। হযরত রাসুল (সা.)-এর আবির্ভাবের পূর্বে আরবি ভাষা ও সাহিত্যে এ শব্দটির ব্যবহার লক্ষ্য করা যায় না। কেবল আল কুরআনের আয়াতের ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণের ক্ষেত্রেই এ শব্দটির ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়।

এ তাফসীর শরীফে মহান আল্লাহর স্বরূপ, তাঁর অপরূপ সৌন্দর্যমণ্ডিত নুরের চেহারা মোবারকের বর্ণনা দেওয়া হয়েছে। মহান আল্লাহ্ রাব্বুল আলামিন দেখতে কেমন? এ প্রশ্নের যথাযথ উত্তর মুসান্নেফ তাফসীর প্রণেতা সুন্দরভাবে দিয়েছেন। মহান আল্লাহ্র জাত-পাকের পরিপূর্ণ রূপের বর্ণনা তাফসীর শরীফের ১ম খণ্ডে উপস্থাপিত হয়েছে। জাত-পাকের বর্ণনা দেওয়ার পর তাফসীর শরীফের প্রণেতা মনোযোগ দেন- আল্লাহ্র সিফাত বা তাঁর গুণবাচক নামের বাস্তবতা তুলে ধরতে। আল্লাহর গুণবাচক নামের তাফসীর করাতে গিয়ে মুসান্নেফ ৭ খণ্ড সিফাতের তাফসীর সমাপ্ত করেছেন। যা ইতিমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে।

এ তাফসীর শরীফে গতানুগতিক কোনো ধারা স্থান পায়নি। তিনি ত্রিশ পারা কুরআনের তাফসীর করেননি। বরং সম্পূর্ণ কুরআন খুঁজে আল্লাহর পরিচয় সম্বলিত আয়াতগুলো বের করেছেন। তিনি আল্লাহর ভাষায় আল্লাহর বর্ণনায় আল্লাহর পরিচয় বের করে আল্লাহর বান্দাদের সামনে উপস্থাপন করেছেন। এ ক্ষেত্রে তিনি আল্লাহর বাণীর ব্যাখ্যা হযরত রাসুল (সা.)-এর বাণীর দ্বারা উপস্থাপন করেছেন। অর্থাৎ- মহান আল্লাহ্ যখন হযরত রাসুল (সা.)-এর অন্তরে ওহি নাজিল করেন, তখন ঐ ওহির বাণী হযরত রাসুল (সা.) সাহাবায়ে কেরামের কাছে ব্যক্ত করেছেন। আর এ ব্যক্ত করতে গিয়ে হযরত রাসুল (সা.) যে ব্যাখ্যা দিয়েছেন, সূফী সম্রাট হুজুর কেবলাজান আল্লাহর বাণীর ব্যাখ্যা হযরত রাসুল (সা.)-এর ঐ বাণী দিয়ে করেছেন। ফলে এই তাফসীর শরীফ অধ্যয়নকালে পাঠকের মনে হবে, সে যেন রাসুলের যুগের রাসুলের মজলিসের তাফসীর বা ব্যাখ্যা অধ্যয়ন করছে। বিষয়টি যথাযথভাবে সম্পন্ন করার জন্য সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী তাফসীর ও হাদীসের অনেক দুর্লভ কিতাব সংগ্রহ করেছেন।

ইসলামের স্বর্ণযুগ হতে শুরু করে আধুনিক যুগের দুর্লভ কিতাবগুলো যা সর্বজন স্বীকৃত মণীষীগণ সংকলন করেছেন। যেমন- তাফসীরে ইমাম হোসাইন, তাফসীরে ইমাম আলী, তাফসীরে ইবনে আব্বাস, মুসনাদে ইমাম আলী, মুসনাদে ফাতেমাতুজ জোহরা, মুসনাদে ইমাম হাসান, তাফসীরে ইবনুল আরাবী, তাফসীরে তুসতুরী ইত্যাদি ছাড়াও চার মাজহাবের ইমামদের সংকলিত তাফসীর ও হাদীসের কিতাব তাঁর সংগ্রহে রয়েছে। এ ছাড়াও সূফী সম্রাটের ব্যক্তিগত লাইব্রেরিতে শত শত তাফসীর ও হাদীসের কিতাব রয়েছে, যার পূর্ণাঙ্গ বিবরণ উল্লেখ করলে একটি ছোটো পুস্তিকা হয়ে যাবে। তবে আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে, সূফী সম্রাটের দর্শন উপস্থাপনে এ বিশাল গ্রন্থশালা সহায়ক ভূমিকা পালন করছে সত্য কিন্তু পবিত্র কুরআন ও হাদীস দিয়ে আল্লাহর স্বরূপ উপস্থাপনের পূর্বেই সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী আল্লাহ্কে দেখেছেন, তাঁর পরিচয় লাভ করেছেন। তাঁর জ্ঞানের উৎস এলমুল কিতাব নয়। এ মহামানব ঐ বিদ্যায় বিদ্বান, যে বিদ্যায় নবি ও রাসুলগণ বিদ্বান ছিলেন। আর তা হলো- এলমুল ক্বালব। রাহমাতুল্লিল আলামিন হযরত রাসুল (সা.) হেরা গুহায় ধ্যানমগ্ন অবস্থায় এলমুল ক্বালবের যে মোকাম খুলে নিয়েছিলেন, জ্ঞানের সে অফুরন্ত ঝর্ণাধারা দিয়েই তাঁর কাছে কুরআন এসেছিল। নবুয়তের যুগে এ জ্ঞানকে এলমে ওহির জ্ঞান বলা হলেও বেলায়েতের যুগে এ জ্ঞানকে এলহামের জ্ঞান বলা হয়ে থাকে। সূফী সম্রাট হুজুর কেব্লাজান বেলায়েতের যুগে শ্রেষ্ঠ ইমাম। তিনি রুহুল ক্বুদ্দুস বা রুহুল আমীন বা রূহে আজমের অধিকারী, আল্লাহর যে পবিত্র সত্তা আম্বিয়ায়ে কেরামের ক্বালবের সপ্তম স্তরে নাফসির মোকাম থেকে সুদুরের মোকামে ওহি করেছিল। আর এটি এজন্য যে, সূফী সম্রাট প্রতিশ্রুত মহামানব। তিনি আল্লাহর ধর্মের প্রচারক। তিনি আল্লাহ্র ইচ্ছায় পরিচালিত। সূফী সম্রাট হযরত দেওয়ানবাগী (মা. আ.) হুজুর কেবলাজান বলেন- ‘‘শৈশব থেকেই শুনে আসছি আল্লাহ্ নিরাকার। তাঁকে এ দুনিয়াতে দেখা যায় না। কিন্তু এলমুল ক্বালবের সাধনার মাধ্যমে আমি যখন আল্লাহর দিদার লাভ করি, আল্লাহ্ যখন দয়া করে আমার সাথে কথা বলেন, তখন আমি লক্ষ্য করালাম- মহান আল্লাহ্ রূপহীন ও নিরাকার নন। তাঁর নুরের আকার আছে।’’

সূফী সম্রাট হুজুর কেব্লাজান আল্লাহ্র রূপের বর্ণনা দিতে গিয়ে বলেন- ‘‘আল্লাহ্ দেখতে অবিকল মানুষের মতো, তবে মানুষ রক্ত মাংসের দেহধারী আর মহান আল্লাহ্ নূরের।’’ সূফী সম্রাটের এ বাণী বিশ্ববাসীকে আল্লাহর স্বরূপ উপলব্ধি করতে সাহায্য করছে। তিনি একমাত্র মহামানব যার বাণীতে মহান আল্লাহর পরিপূর্ণ রূপের বর্ণনা ফুটে উঠেছে। আর এ বাণী তাঁর বাস্তব দর্শন, প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা ও বন্ধুর সাথে বন্ধুর সামনাসামনি কথোপকথনেরই প্রতিফলন। সূফী সম্রাট হুজুর কেবলাজানের এ বাণীর সত্যতায় পবিত্র কুরআনে ৭২৩ খানা আয়াত এবং ২৮০৮ খানা হাদীস পাওয়া গেছে, যা তিনি তাঁর তাফসীর শরীফের ১ম খণ্ডে আল্লাহর জাত-পাকের পরিচয় দিতে গিয়ে লিপিবদ্ধ করেছেন। আসলে আল্লাহর পরিচয় দেওয়া কোনো স্বাভাবিক ঘটনা নয়। এ কাজ ছিল নবুয়তের যুগে আম্বিয়ায়ে কেরামের। বেলায়েতের যুগে এ কাজ ন্যস্ত হয়েছে আওলিয়ায়ে কেরামের উপর।

‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’ গ্রন্থের প্রণেতা বলেন- ‘‘আমি আল্লাহ্কে এমনভাবে চিনি, সন্তান যেমন তার পিতাকে চেনে।’’ তিনি এলহামপ্রাপ্ত মহামানব। তিনি আল্লাহর ইচ্ছা-অনিচ্ছা জেনে ধর্ম পালন করেন এবং অনুসারীদের নির্দেশ দেন। তিনি তাফসীরের কলেবরের দিকে লক্ষ্য করে মহান আল্লাহ্ তায়ালার সিফাতের মধ্য থেকে ৩৪টি গুণবাচক নামের বর্ণনা দ্বিতীয় খণ্ডে উপস্থাপন করেছেন। তিনি ৩৪টি সিফাতের বর্ণনায় ৫০১ খানা পবিত্র কুরআনের আয়াত এবং ১,৪৩৮ খানা হাদীস উল্লেখ করেছেন।

‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’ ৩য় খণ্ডে আল্লাহর গুণবাচক নামের পরিচয় সংবলিত গ্রন্থে সর্বমোট পবিত্র কুরআনের ৪৫৩ খানা আয়াত, ১,৩০৬ খানা হাদীস ৪টি অধ্যায়ে ধারাবাহিকভাবে উপস্থাপন করে প্রমাণ করা হয়েছে যে, মহান আল্লাহ্ কুল কায়েনাতের সকল প্রাণির রিজিকদাতা, তিনি সবাইকে দেখেন, তাদের মুখের ও অন্তরের কথা শুনেন এবং তাদের সকলের সার্বিক অবস্থা জানেন এই বিষয় সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা করেছেন।
‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’র ৪র্থ খণ্ডের তাফসীর প্রণেতা মহান রাব্বুল আলামিনের ১৮টি গুণবাচক নামের পরিচয় লিপিবদ্ধ করেছেন। যার মাধ্যমে সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়েছে মহান আল্লাহর নুরের রূপ আছে, তিনি নিরাকার নন। মহান রাব্বুল আলামিনের এ ১৮টি গুণবাচক নাম মোবারকের মহিমা, বাস্তবতা ও প্রয়োগ অনুসন্ধান করতে গিয়ে তিনি ওহির বাণী আল কুরআনের ৪২১ খানা আয়াত খুঁজে পেয়েছেন। এমনিভাবে খুঁজে পাওয়া ৪২১ খানা আয়াতের তাফসীর করতে গিয়ে তাফসীর প্রণেতা আল্লাহর রাসুল (সা.)-এর হাদীস যেমন গ্রহণ করেছেন, তেমনি কুরআনের এক আয়াতের তাফসীর অন্য আয়াত দ্বারা করেছেন। যাকে তাফসীর শাস্ত্রের পরিভাষায় ‘তাফসীরুল কুরআন বিল কুরআন’ অর্থাৎ- কুরআনের এক আয়াতের ব্যাখ্যা অন্য আয়াত দ্বারা করা। অনুরূপভাবে তাফসীরুল কুরআন বিল হাদীস আও বির বিওয়াইয়াহ অর্থাৎ- কুরআনের বাণীর ব্যাখ্যা হযরত রাসুল (সা.)-এর বাণীর দ্বারা করা বলা হয়। আর এ ধরনের তাফসীরই সর্বোত্তম তাফসীর। তিনি ৪র্থ খণ্ডে মহান রাব্বুল আলামিনের ১৮টি গুণবাচক নামের মহিমা ও বাস্তবতা উপস্থাপন করতে গিয়ে তিনি সর্বমোট পবিত্র কুরআনের ৪২১ খানা আয়াত এবং ১৯৬৬ খানা হাদীস উপস্থাপন করে মহান আল্লাহ্ ও হযরত রাসুল (সা.)-এর ভাষায় আল্লাহর স্বরূপ তুলে ধরেছেন।

‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’র ৫ম খণ্ডে তিনি মহান রাব্বুল আলামীনের ১৭টি গুণবাচক নাম মোবারককে ১৭টি অধ্যায়ে বিন্যস্ত করেছেন। অর্থাৎ- প্রত্যেকটি সিফাত স্বতন্ত্র অধ্যায়ে উপস্থাপিত হয়েছে। তিনি মহান রাব্বুল আলামিনের ১৭টি সিফাতের পরিচয় সর্বমোট ১৭টি অধ্যায়ের ৫৩টি পরিচ্ছদে পবিত্র কুরআনের ৪৫৮ খানা আয়াত এবং ১,৯৩৩ খানা হাদীসের সমন্বয়ে লিপিবদ্ধ করেছেন।


‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’র ৬ষ্ঠ খণ্ডে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী হুজুর কেব্লাজান মহান রাব্বুল আলামিনের ২৩টি সিফাত তথা গুণবাচক নামের পরিচয় ও স্বরূপ তুলে ধরেছেন। তিনি সর্বমোট পবিত্র কুরআনের ৪৫৯ খানা আয়াত এবং ১৮৯৪ খানা হাদিসের সমন্বয়ে তাফসীর শরীফের ৬ষ্ঠ খণ্ডে লিপিবদ্ধ করেছেন। তিনি পবিত্র কুরআনের প্রতিটি আয়াত ও আয়াত সংশ্লিষ্ট হাদিসের ব্যাখ্যা পর্যালোচনায় উপস্থাপন করে প্রমাণ করেছেন- মহান আল্লাহ্র নুরের রূপ আছে, তিনি নিরাকার নন। সুতরাং যে মহান আল্লাহ্ সর্বগুণে গুণান্বিত, যিনি সকল গুণের আধার, তাঁর যে অপরূপ নুরের রূপ আছে, এতে কোনো একজন জ্ঞানী ব্যক্তিরও সন্দেহ থাকা উচিত নয়। অন্যদিকে আল্লাহ্ যাকে দয়া করে তাঁর দিদার দিয়েছেন, স্বীয় সাক্ষাত দ্বারা ধন্য করেছেন- তিনি সন্দেহাতীতভাবেই জানেন যে, আল্লাহর অপরূপ সুন্দর নুরের রূপ আছে; তিনি নিরাকার নন।
‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’র ৭ম খণ্ডে আল্লাহর ৯টি সিফাতের ৫৪৪ খানা আয়াত এবং ২২১৯ খানা হাদিস ছাড়াও বিষয় সংশ্লিষ্ট আরও অনেক আয়াত ও হাদিস উপস্থাপিত হয়েছে। এই খণ্ডে প্রতিটি আয়াত ও হাদিস অকাট্যভাবে প্রমাণ করেছে মহিমান্বিত আল্লাহর নুরের রূপ আছে, তিনি নিরাকার নন।

‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’র ৮ম খণ্ডে তাফসীর প্রণেতা সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী (মা. আ.) হুজুর কেব্লাজান মহান রাব্বুল আলামিনের ‘আর রব’ নামক মোবারকের মহিমা ৬২১ খানা আয়াত ও ২৩৪৩ খানা হাদিস দ্বারা উপস্থাপন করেছেন। মহান আল্লাহ্ মানব সম্প্রদায়-সহ সকল সৃষ্টিকে কীভাবে লালন-পালন করছেন তা এই তাফসীর শরীফে লিপিবদ্ধ করেছেন। ফলে চিন্তাশীল পাঠক বুঝতে পারবেন- আল্লাহ্ই আমাদের সৃষ্টিকর্তা, লালনকর্তা, পালনকর্তা, রিজিকদাতা, জীবন ও মৃত্যুদাতা। এই সুমহান রবের নুরের রূপ আছে। তিনি নিরাকার নন। এই শেষ খণ্ডের শেষের দিকে তাফসীর প্রণেতা নতুন একটি বিষয় সংযোজিত করেছেন। সেটি হলো- তাফসীর শরীফের আট খানা খণ্ড যে ওহির বাণী আল কুরআনের দ্বারা লিপিবদ্ধ, সে কুরআনের নাজিলের ক্রমধারা ও সংকলনের ইতিহাস উপস্থাপন করেছেন। এ থেকে পাঠকবৃন্দ কুল কায়েনাতের রহমত হযরত মোহাম্মদ (সা.)-এর নবুয়তি জিন্দেগির ২৩ বছর যে ধারাবাহিকতায় ওহির বাণী আল কুরআন নাজিল হয়েছে তা সম্বন্ধে অবগত হতে পারবেন। সর্বশেষ তাফসীর প্রণেতা সূফী সম্রাট হযরত দেওয়ানবাগী হুজুর কেব্লাজান ‘আল্লাহর পরিচয় সংবলিত আট খণ্ড তাফসীর সম্পর্কে তাফসীর প্রণেতার সমাপনী বাণী মোবারক’ দ্বারা তাফসীর শরীফ সমাপ্ত করেছেন।

তাঁর প্রত্যেকটি বাণীর সমর্থনে পবিত্র কুরআনের আয়াত ও হাদীস পাওয়া যায়। তাঁর কোনো বাণীই কুরআনের সাথে গরমিল হয় না। একদা আল-কুরআন গবেষণা কেন্দ্রে সূফী সম্রাটের কাছে এক কারণ জানতে চাওয়া হয়েছিল। তিনি দয়া করে জবাব দিলেন- ‘‘কুরআনের বাণী ও আমার কথা দুরকম হবার কথা না। কেননা যে মহান আল্লাহ্ হযরত আদম (আ.) হতে শুরু করে হযরত রাসুল (সা.) পর্যন্ত সকল আম্বিয়ায়ে কেরামের মাঝে ছিলেন, সে মহান আল্লাহ্ই আমার মাঝে বিরাজিত। সুতরাং আল্লাহ্ যেহেতু একজনই, বাণী তো দুরকম হবার নয়।’’ এ প্রসঙ্গে সূফী সম্রাট হুজুর কেবলাজান অন্য একদিন বলেন- ‘‘মোহাম্মদী ইসলাম তো আমার না, এটি আল্লাহ্ ও রাসুলের ধর্ম। সুতরাং, ধর্ম যাঁদের তাঁদেরই দ্বায়িত্ব ধর্মকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া। আমাকে সামনে পেশ করা হয়েছে মাত্র। আমি আল্লাহর ইচ্ছার বাইরে কিছুই করতে পারি না।’’

মূলত ‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’ এক অমূল্য গ্রন্থ। যে গ্রন্থে জগত শ্রেষ্ঠ সূফী তাঁর অন্তদৃষ্টি দিয়ে মহান আল্লাহ্কে যেমন দেখেছেন, তা ব্যক্ত করেছেন। সূফী সম্রাট পরকালীন জীবনের চিত্র এবং রূহানী জগতের বাস্তবতাও তাঁর তাফসীর শরীফে তুলে ধরেছেন। প্রকৃতপক্ষে এ তাফসীর শরীফে আল্লাহর ধর্মের রূপরেখা তুলে এনেছেন এমন এক শিল্পী, যে শিল্পী তার পরম প্রেমাস্পদকে (মাশুক) দেখে দেখে তাঁকে সামনে রেখে কলমের আচরে তাঁর স্বরূপ তুলে আনতে সচেষ্ট।

প্রকৃতপক্ষে সূফী সম্রাট হুজুর কেবলাজানের তাফসীর শরীফে মানব মুক্তির সত্য দর্শন উপস্থাপিত হয়েছে। এ দর্শন চিরন্তন, অকাট্য, অলংঘনীয়; এটি পথহারাদের পথের দিশা, আবার পথিকের পাথেয়, আল্লাহ্ প্রেমিকদের শারাবান তাহুরা, এটি অনবদ্য এক জীবন দর্শন।

তথ্য সূত্র :
১। আল-কুরআন
২। আল-হাদীস
৩। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ১ম খণ্ড
৪। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ২য় খণ্ড
৫। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ৩য় খণ্ড
৬। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ৪র্থ খণ্ড
৭। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ৫ম খণ্ড
৮। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ৬ষ্ঠ খণ্ড
৯। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ৭ম খণ্ড
১০। তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী ৮ম খণ্ড
১১। সূফী সম্রাট স্মরণিকা ৬৪তম শুভ জন্মবার্ষিকী
১২। সূফী সম্রাট স্মরণিকা ৬৫তম শুভ জন্মবার্ষিকী
১৩। দর্শন ও প্রগতি, গোবিন্দদেব দর্শন কেন্দ্র, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

2 COMMENTS

  1. ‘তাফসীরে সূফী সম্রাট দেওয়ানবাগী’ অত্যন্ত মূল্যবান একটি গ্রন্থ, যা মানব মুক্তির মহাসত্য দর্শন। আমরা যেনো এ পবিত্র গ্রন্থটি পাঠ করে নিজের জীবনে বাস্তবায়ন করতে পারি, আমিন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here