পাট চাষীদের দূরবস্থা

0
193

মুন্সিগঞ্জ সংবাদদাতা: গত ১৮ আগস্ট রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলগুলোর কাছে বকেয়া টাকার দাবীতে বাংলাদেশ জুট মিলস করপোরেশনের সামনে কাফনের কাপড় পড়ে বাংলাদেশ পাট ব্যবসায়ী সমিতির সদস্যরা আন্দোলন করেছে। সে মুহূর্তে বাংলার পাট চাষীগণ তাদের মনে বুক ভরা আশা নিয়ে পানি হতে পাট উত্তোলন করে বাজারজাত উপযোগী করায় ব্যস্ত।

মুন্সিগঞ্জ সংবাদদাতা আব্দুল মান্নান সিদ্দিকী জানান, জেলার বিভিন্ন উপজেলার পাট চাষী কম বেশি পাট জমিতে চাষ করেছেন। স্বাধীনতার পর শতকরা ৮০ ভাগ বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন হতো এই পাট ও পাটজাত দ্রব্য হতে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭২টি জুট মিলকে জাতীয়করণ করেন। আশির দশকে পলিথিন ব্যাগ বাজারে আসায় পাট শিল্পের ধস নামে। তৎকালীন সরকার বেশিরভাগ পাটকলগুলো ব্যক্তি মালিকানায় হস্তন্তরের পরপরই সেটি বন্ধ হয়ে যায়। ২৫টি পাটকল সরকারের হাতে থাকলেও ২০২০ সালে এসে সরকার শ্রমিকদের চাকুরী হতে অব্যাহতি দেন। এতে হাজার হাজার শ্রমিক বেকার হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করা সত্ত্বেও গ্রামের কৃষক পাট উৎপাদন বন্ধ করেননি। কৃষক আবদুল করিম ও কৃষাণী ফাতেমা বেগম এ প্রতিনিধিকে জানান পাটচাষে লাভ নেই, তারপরও বাপ দাদার পৈত্রিক পেশা তারা ধরে রেখেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here