প্রশ্নোত্তর

3
1296

প্রশ্ন : শিরক কাকে বলে?
উত্তর: ‘শিরক’ আরবি শব্দ। এ শব্দটির আভিধানিক অর্থ অংশীদার স্থাপন করা। মহাগ্রন্থ আল কুরআনের পরিভাষায় শিরক অর্থ ইবাদতে আল্লাহর সাথে অন্য কাউকে শরিক করা। মহান আল্লাহ্ বলেন-“যে ব্যক্তি তার প্রতিপালকের সাক্ষাৎ বা দিদার লাভের আশা রাখে, সে যেন সৎকর্ম করে এবং তার প্রতিপালকের ইবাদতে অন্য কাউকে শরিক না করে।” (সূরা আল কাহ্ফ-১৮ : আয়াত ১১০) আল্লাহ্ তায়ালা শিরককে সবচেয়ে জঘন্য অপরাধ বলে গণ্য করে থাকেন। এরশাদ হচ্ছে- “নিশ্চয় শিরক তো মহাপাপ।” (সূরা-লুকমান-৩১ : আয়াত ১৩)

মানুষের সকল ইবাদত একমাত্র আল্লাহর উদ্দেশ্যে বা আল্লাহ্র সন্তুষ্টির জন্য নিবেদিত হতে হবে। এভাবে নামাজ, কিংবা অন্যান্য ইবাদতে আল্লাহর সাথে অন্যকিছুর কল্পনা করাই শিরক। অতএব যাবতীয় ইবাদতে আল্লাহ্ ছাড়া অন্য সকল চিন্তা থেকে সম্পূর্ণ মুক্ত হওয়া উচিত।

প্রশ্ন : আল্লাহ্ ছাড়া কারো কাছে সাহায্য চাওয়া শিরক কি না?
উত্তর: ইবাদতে আল্লাহর সাথে অন্যকে শরিক করা, আর জীবন ধারণের প্রয়োজনে আল্লাহ্ ছাড়া অন্য কারো কাছে সাহায্য চাওয়া, এক বিষয় নয়। জন্মগতভাবে মানুষ পরনির্ভরশীল। ভূমিষ্ঠ হওয়ার পর সন্তানের লালনপালনের জন্য মানবশিশুকে পিতামাতা, কিংবা অন্য কারো উপর নির্ভর করতেই হয়। লেখাপড়া শেখার জন্য তাকে শিক্ষকের উপর নির্ভর করতে হয়। এভাবে জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত প্রতি পদক্ষেপে মানুষকে কারো না কারো সাহায্য নিতে হয়। এমনকি মৃত্যুর পর অন্যের সাহায্য ছাড়া মৃতদেহ দাফন-কাফন হওয়াও সম্ভব নয়।

মানুষ একে অন্যের উপর নির্ভরশীল হওয়ার কারণেই সমাজবদ্ধভাবে বসবাস করে। আল্লাহ্ ছাড়া অন্য কারো সাহায্য নেওয়া যদি শিরক হয়, তবে নির্ভরশীল মানুষ জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত অগণিত শিরক করে আসছে! সুতরাং এই ধারণা সম্পূর্ণ ভুল। আল্লাহ্ তায়ালার সৃষ্টির নিয়মে প্রত্যেক মানুষকে কিছু না কিছু দায়িত্ব পালন করতেই হয়। মানুষ একে অন্যের সাহায্যের মাধ্যমে আল্লাহর দেওয়া দায়িত্ব পালন করে থাকে। এজন্য পারস্পরিক সহযোগিতা ও সাহায্য লাভের মূলনীতিও মহান আল্লাহ্ নিজেই বলে দিয়েছেন, এরশাদ হচ্ছে- “তোমরা একে অন্যকে নেক কাজে এবং তাকওয়ার বিষয়ে সাহায্য করবে, কিন্তু পাপ কাজে ও সীমালঙ্ঘনের বিষয়ে একে অন্যকে সাহায্য করবে না।” (সূরা-আল মায়িদাহ-৫ : আয়াত-২) সুতরাং ইবাদতে আল্লাহর সাথে অন্যকে শরিক করাই মূলত শিরক।

3 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here