বাল্যবিবাহ বেড়েছে ১০ শতাংশ

0
16

দেওয়ানবাগ ডেস্ক: দেশে করোনা মহামারির দুই বছরে ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী প্রায় ২৭ শতাংশ মেয়ের বিয়ে হয়েছে। এদের মধ্যে প্রথম বছর ২০২০ সালে বিয়ে হয়েছে প্রায় ২৪ শতাংশের এবং দ্বিতীয় বছর ২০২১ বিয়ে হয়েছে প্রায় ৩৪ শতাংশের। এই হিসাবে ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী মেয়েদের বিয়ের হার ২০২১ সালে আগের বছরের তুলনায় ১০ শতাংশ বেড়ে যায়।


গত রবিবার রাজধানীর একটি হোটেলে কভিড-১৯ মহামারির সময়ে বাল্যবিবাহের অবস্থা ও শহরের বস্তিতে মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে দুটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিল (ইউএনএফপিএ)।
অনুষ্ঠানে ‘বাংলাদেশে কভিড-১৯ মহামারির সময় বাল্যবিবাহ :একটি দ্রুতঅধ্যয়ন’এবং‘বাংলাদেশেরশহুরেবস্তিতেনারী ও কিশোরী মেয়েদের মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা’ বিষয়ক গবেষণার ফলাফলের ওপর আলোচনা হয়।
দেশে ১৮ বছরের নিচের বয়সী মেয়েদের বিয়ে হলে তা বাল্যবিবাহ হিসেবে ধরা হয়। সেক্ষেত্রে জরিপ প্রতিবেদনে ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী গ্রুপ বিবেচনা করার পেছনে যুক্তি তুলে ধরে অনুষ্ঠানে বলা হয়, জরিপকালে ১৯ বছর বয়সী বেশকিছু মেয়েকে পাওয়া গেছে, যাদের বয়স ২০২০ ও ২০২১ সালের শুরুতে ১৮ বছরের নিচে ছিল।


অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফরিদা পারভিন। প্রধান আলোচক ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, ইউএনএফপিএ বাংলাদেশের ডেপুটি রিপ্রেজেন্টেটিভ মাসাকিওয়াতাবে প্রমুখ।


অনুষ্ঠানে হাসানুজ্জামান কল্লোল বলেন, বাল্যবিবাহ বন্ধের জন্য সম্মিলিত প্রচেষ্টার পাশাপাশি বাবা ও ভাইদের উচিত পরিবারের নারীসদস্যদের উপহারসামগ্রী হিসেবে স্যানিটারি প্যাড সরবরাহ করে উৎসাহিত করা। তিনি নিজেও তাঁর মেয়ের প্রথম মাসিকের সময় এমনটি করেছেন বলে জানান। হাসানুজ্জামান বলেন, জেলা ও উপজেলাভেদে প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে টয়লেট সুবিধা নিশ্চিত করতে হবে, যাতে নারী ও মেয়েরা তাদের কর্মস্থল ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।
ফরিদা পারভিন বলেন, সরকার প্রতিটি ইউনিয়নে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধে বহুমুখী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। দলগত পর্যায়ে সচেতনতা বাড়াতে এবং তা নিশ্চিত করতে ইউএনএফপিএ, দাতা, এনজিও এবং সবার সহযোগিতা অপরিহার্য।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here