যে কারণে করবেন লিচুর বাগান

0
172

কৃষি ডেস্ক: লিচু একটি মৌসুমী ফল। বাংলাদেশের প্রায় সব স্থানেই লিচুর ফলন হয়। তবে রাজশাহী, পাবনা ও দিনাজপুর অঞ্চলে ভালো ফলন হয়। মধু সৃষ্টির পাশাপাশি এর পুষ্টিগুণও অনেক। এতে আছে প্রচুর ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন-সি। মানবদেহের হাড়, দাঁত, চুল, ত্বক ও নখ ভালো রাখতে এ ক্যালসিয়াম দরকার। হিসাব করে দেখা গেছে, ১০০ গ্রাম লিচুতে ১৩.৬ গ্রাম শর্করা, ৬১ গ্রাম ক্যালরি, ১০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ০.৭ মিলিগ্রাম লৌহ ও ৩১ মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি রয়েছে। এই ১০০ গ্রাম লিচু বলতে মাঝারি আকারের প্রায় ১০টি লিচুকে বোঝায়।

মার্কিন ওষুধ প্রশাসন বিভাগ বলছে, প্রতি ১০০ গ্রাম লিচুতে ৬৬ কিলোক্যালরি শক্তি ও ১৬ গ্রাম শর্করা রয়েছে। এতে চর্বি একেবারেই নেই। তবে আরও আছে ৭১ মিলিগ্রাম ভিটামিন-সি, ১৭০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ১৪ মাইক্রোগ্রাম ফলেট এবং ১ মিলিগ্রাম সোডিয়াম।

জাপানের কিয়োরিন বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে, লিচুতে রয়েছে অলিগোনল নামের এক ধরনের উপাদান। একে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্লুয়েঞ্জা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এ উপাদান-

১. রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রাখে

২. ত্বকে ক্ষতিকর অতি বেগুণি রশ্মির প্রভাব নিয়ন্ত্রণ করে

৩. ওজন কমায় এবং

৪. রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

প্রচুর ভিটামিন-সি’র সাথে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকার কারণে লিচু বেশ কিছু রোগ, যেমন- সর্দির সমস্যা, ফ্লু, কাশি প্রতিরোধ করে। এ ছাড়াও বিভিন্ন সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে লিচু কার্যকরী একটি ফল। তাই লিচুর বাগান করা আমাদের জন্য আবশ্যক। ছোট-বড় যেকোনো ধরনের বাগান করতে পারেন আজই। এর মাধ্যমে পরিবারের পুষ্টি নিশ্চিত করার পাশাপাশি করতে পারবেন বাড়তি আয়ও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here