লকডাউনেও ফেসবুকের রমরমা ব্যবসা

0
150

বিজ্ঞান ডেস্ক: কথায় বলে কারও পৌষ মাস আর কারও সর্বনাশ। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক অর্থনীতির অবস্থা নড়বড়ে হয়ে গেছে। প্রায় প্রতিটি ইন্ড্রাস্ট্রি বা শিল্পখাত করোনার প্রভাবে বিপর্যস্ত। গত দুই মাসে সম্পদ বাড়াতে পেরেছেন, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। তবে ব্লুমবার্গ বিলিয়নিয়ার সূচক অনুযায়ী, ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ গত দুই মাসে ৩ হাজার কোটি ডলার সম্পদ বাড়াতে পেরেছেন।
গত মার্চের মাঝামাঝি সময়ে জাকারবার্গের সম্পদের পরিমাণ হিসাব করা হয়েছিল ৫ হাজার ৭৫০ কোটি ডলার। এখন তা বেড়ে ৮ হাজার ৭৫০ কোটি ডলার বা ৮৭ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। সম্পদের দিক থেকে বর্তমানে বিশ্বের তৃতীয় ধনী জাকারবার্গ। তিনি পেছনে ফেলেছেন ওয়ারেন বাফেটকে। তার সামনে বিল গেটস আর জেফ বেজোস।

সম্প্রতি মার্কিন সংবাদ মাধ্যম সিএনবিসি জানায়, শপস নামে অনলাইন শপিং ফিচার চালু করার ঘোষণা দেওয়ার পর ফেসবুকের শেয়ারের দাম সর্বোচ্চ বেড়ে ২৩০.৭৫ মার্কিন ডলারে ঠেকে। গত দুই মাস ফেসবুক ও জাকারবার্গের বেশ ব্যস্ত সময় গেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের কথা মাথায় রেখে নতুন নতুন ফিচার নিয়ে এসেছে প্রতিষ্ঠানটি। একদিকে যেমন ই-কমার্স চালুর ঘোষণা দিয়েছে, অন্যদিকে জুম সফটওয়্যারকে টেক্কা দিতে মেসেঞ্জার রুমস নামে নতুন সেবা চালু করেছে। রুমসে একসঙ্গে ৫০ জন কলে অংশ নিতে পারবেন। এতে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট না থাকলেও যুক্ত হওয়া যায়। ফেসবুক এতে হোয়াটসঅ্যাপ ও ইনস্টাগ্রামকেও যুক্ত করেছে।

এরই মধ্যে প্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইট দ্য ভার্জকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জাকারবার্গ বলেন, ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম ফেসবুক কর্মীদের মধ্যে ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। দীর্ঘ মেয়াদে আমরা কর্মীদের বাড়িতে থেকে কাজের সুযোগ দিতে অনুরোধ গ্রহণ করতে যাচ্ছি। এটা নতুন এক সংস্কৃতি। এতে ভৌগোলিক সীমারেখা পার করে ফেসবুক বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মেধাবী কর্মীদের নিয়োগ দিতে পারবে। এটি কেবল নিয়োগের ক্ষেত্রেই নয়, কর্মী ধরে রাখার ক্ষেত্রেও সুবিধা হবে। কারণ, অনেক কর্মী অবস্থানগত কারণে চাকরি ছেড়ে দেন।’

কর্মীদের মধ্যে পরিচালিত জরিপের ভিত্তিতে জাকারবার্গ বলেছেন, কোম্পানির প্রায় ৪০ শতাংশ কর্মী বাড়ি থেকে কাজ করতে আগ্রহী।

ঘরে বসে এই নতুন কাজের অনুশীলনটি কর্মীদের উৎপাদনশীলতায় প্রভাব ফেলছে কি না, তা নিয়ে যখন অনেকেই দুশ্চিন্তা করছেন, তখন জাকাররবার্গ মনে করেন যে এটি তাঁদের জন্য আশ্চর্যজনকভাবে ইতিবাচক হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here