সুদিন ফিরেছে রফতানিতে

0
194

অর্থনৈতিক প্রতিবেদক: করোনা মহামারির মধ্যে রেমিট্যান্সের পর এবার সুদিনে ফিরেছে রফতানি বাণিজ্যে। ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে রফতানি বেড়েছে ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ এবং গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে শূন্য দশমিক ৫৯ শতাংশ। রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

করোনার সরাসরি বাণিজ্যিক আঘাত লাগে দেশের রফতনি খাতে। এখন পরিস্থিতি কিছুটা উন্নতি হচ্ছে। ব্যবসা-বাণিজ্য খুলতে শুরু করেছে। মহামারিতে বাতিল ও স্থগিত হওয়া রফতানি আদেশ ফিরে আসছে। এতে মহামারির প্রথমিক ধাক্কা কাটিয়ে আবার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে রফতানিখাত।

ইপিবির তথ্য অনুযায়ী, নতুন অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইয়ে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৪৪ কেটি ৯০ লাখ ডলার। বিপরীতে আয় হয়েছে ৩৯১ কোটি ডলার। অর্থাৎ প্রথম মাসে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আয় বেড়েছে ১৩ দশমিক ৩৯ শতাংশ। একই সঙ্গে অর্জিত রফতানি আয় আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে বেড়েছে শূন্য দশমিক ৫৯ শতাংশ।

দেশের রফতানির আয়ের প্রায় ৮৫ শতাংশ আসে তৈরি পোশাক খাত থেকে। করোনার কারণে গত মার্চ থেকে এ খাতের রফতানি কমতে শুরু করে, এপ্রিলে পোশাক রফতানিতে ভয়াবহ ধস নামে। মে মাসেও তা অব্যাহত থাকে। তবে জুন থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে।

ইপিবির তথ্যে দেখা গেছে, জুলাইয়ে তৈরি পোশাক খাতে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ২৮৪ কোটি ২০ লাখ ডলার। আয় হয়েছে ৩২৪ কোটি ৪৯ লাখ ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় বেশি হয়েছে ১৪ দশমিক ১৮ শতাংশ। তবে গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আয় ১ দশমিক ৯৮ শতাংশ কম হয়েছে।

আলোচিত সময়ে প্লাস্টিক জাত পণ্য রফতানি কমেছে। জুলাইয়ে প্লাস্টিক জাত পণ্য রফতানির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল এক কোটি তিন লাখ ডলার। বিপরীতে আয় হয়েছে ৯৮ লাখ ৮০ হাজার ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় কম হয়েছে ৪ দশমিক ৫৪ শতাংশ। গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ২৩ দশমিক ৭১ শতাংশ।

এদিকে তৈরি পোশাক, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য এবং প্লাস্টিকসহ বড় বড় খাতের রফতানি আয় কমলেও কৃষি, পাট ও পাটজাত পণ্যের রফতানি বেড়েছে।

ইপিবির তথ্যমতে, চলতি অর্থবছরের জুলাইয়ে পাট ও পাটজাত পণ্যে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৯ কোটি ৮২ লাখ ডলার কিন্তু আয় হয়েছে ১০ কোটি ৩৫ লাখ ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রার তুলানায় ৫ দশমিক ৪৪ শতাংশ বেশি। এছাড়া গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৩৮ দশমিক ২৩ শতাংশ।

কৃষিপণ্য খাতে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৯ কোটি ডলার, বিপরীতে আয় হয়েছে ১০ কোটি ১০ লাখ ডলার। সে হিসেবে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় আয় বেড়েছে ১২ দশমিক ২৮ শতাংশ এবং গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৩০ দশমিক ৯২ শতাংশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here